1. nokhatronews24@gmail.com : ajkarsatkhiradarpan darpan : ajkarsatkhiradarpan darpan
  2. install@wpdevelop.org : sk ferdous :
সাতক্ষীরাসহ ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় করোনার বাধা - আজকের সাতক্ষীরা দর্পণ
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০২:৪৪ অপরাহ্ন
১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ খবর :
📰দুর্নীতির অভিযোগে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবদুল গনি স্ট্যান্ড রিলিজ📰এবারও ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডব থেকে সাতক্ষীরাকে বাঁচালো সুন্দরবন📰রেমাল আমাগো পথে বসিয়ে দেছে📰ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে সাতক্ষীরায় ১৪৬৮ বাড়িঘর বিধ্বস্ত📰দেবহাটায় ৮টি পরোয়ানাভুক্ত আসামী গ্রেপ্তার📰চাঞ্চল্যকর ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী কলারোয়ার রিপন গ্রেপ্তার📰ঘূর্ণিঝড় রিমালের পর আসছে পাকিস্তানের আসনা📰বাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশের আশঙ্কা📰রেমাল আতঙ্কে সাতক্ষীরার উপকূলের মানুষঃ ঝূঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ নিয়ে শঙ্কা📰পাইকগাছায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চুড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সাথে মতবিনিময় সভা

সাতক্ষীরাসহ ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় করোনার বাধা

প্রতিবেদকের নাম :
  • হালনাগাদের সময় : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ২৬ সংবাদটি পড়া হয়েছে

ন্যাশনাল ডেস্ক: মহামারি আকার ধারন করা করোনা ভাইরাস ঘুর্ণিঝড় ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করছে। সারাদেশের জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এখন করোনা সংক্রামন ঠেকানোর কাজে পুরোপুরি ব্যস্ত সময় পার করছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রায় প্রতিদিনই জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের কাছে এ সংক্রান্ত বিভিন্ন নির্দেশনা যাচ্ছে। জরুরি ভিত্তিতে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে ৯ জেলার ২৭ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঘুর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বিভিন্ন জেলা উপজেলা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এসব তথ্য।

সরকারের পক্ষ থেকে ঘুর্র্ণিঝড় ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের পূনর্বাসনের নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এসব উদ্যোগ বাস্তবায়নে বড় ভূমিকা রাখছে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর নির্মাণ, মেরামত, কৃষিবীজ বিতরনসহ সরকারি সহায়তা ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে পৌছে দেওয়ার মতো গুরুত্বপূর্ন কাজগুলো ঠিকমতো করা যাচ্ছে না করোনার কারণে। সরকারের উপর মহলের নির্দেশ হচ্ছে- যে কোনো ভাবে হোক, করোনার বিস্তার রোধ করতে হবে। এর জন্য জেলায় কর্মরত বিশেষ কমিটির পরামর্শে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে এবং মনিটরিংয়ে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন কাজ করছে। জেলায় জেলায় চলছে লকডাউন। লকডাউন ঠিকমতো হচ্ছে কিনা তাও তদারকির দায়িত্ব পালন করছেন জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা। এতে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বাংলাদেশের উপর দিয়ে অতি জোয়ার বা জলোচ্ছ্বাসে সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুর জেলার ২৭টি উপজেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলাগুলো হলো- শ্যামনগর, আশাশুনি, কয়রা, দাকোপ, পাইকগাছা, শরণখোলা, মোংলা, মোড়েলগঞ্জ, মঠবাড়ীয়া, বরগুনা সদর, পাথরঘাটা, আমতলী, পটুয়াখালী সদর, গলাচিপা, রাঙ্গাবালী, দশমিনা, মির্জাগঞ্জ, কলাপাড়া, চরফ্যাশন, মনপুরা, তজুমদ্দিন, দৌলতখান, ঈবারহানউদ্দিন, ঈভালা সদর, হাতিয়া, রামগতি ও কমলনগর।

জানা গেছে, ঘুর্ণিঝড় ইয়াস বয়ে যাওয়া জেলাগুলোর মধ্যে করোনা সংক্রমণে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে রয়েছে রয়েছে খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট। এসব জেলার মধ্যে বাগেরহাট, সাতক্ষীরা ও খুলনায় লকডাউন চলছে। পাশাপাশি সারাদেশে শাটডাউনের চিন্তাভাবনাও চলছে। সরকারের পক্ষ থেকে যে কোনও সময় এই ঘোষণা দেওয়া হতে পারে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

এমন পরিস্থিতিতে করোনা সংক্রামনের হার কমানোর কোনও বিকল্প দেখছে না সরকার। সরকারের এই ভাবনা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে শতভাগ সফলতা অর্জনের বিষয়টি নির্ভর করছে জেলা প্রশাসকদের কর্মতৎপরতার ওপর। জেলা প্রশাসকরাও এই কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কয়েকজন জেলা প্রশাসক।

এদিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ঘুর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন জেলার ১৫ লাখ মানুষ সরাসরি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। একই সঙ্গে বয়ে যাওয়া ঘুর্নিঝড়ের প্রভাবে এসব জেলার ২৬ হাজার বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। দেশের ১৬ জেলার ৮২ উপজেলা এবং ১৩ পৌরসভায় ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’র প্রভাব পড়ে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ১৫ লাখ মানুষ। বিধ্বস্ত হয়েছে প্রায় ২৬ হাজার ঘরবাড়ি এবং মারা গেছে নয়জন।

গত ০৩ জুন দুর্যোগ কবলিত জেলা ও উপজেলা স্থানীয় প্রশাসনের দেওয়া প্রাথমিক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ইয়াস’র প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় জলোচ্ছ্বাস, ভারী বৃষ্টির সঙ্গে বয়ে যায় ঝড়ো হাওয়ায় বাঁধ, ঘরবাড়ি ভেঙে যায়। ক্ষতির মুখে পড়ে উপকূলের হাজার হাজার মানুষ।

‘ইয়াসে’ সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সাতক্ষীরা জেলায়। এই জেলায় ৯৪ হাজার ৮৫০ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সাতক্ষীরার আশাশুনি, দেবহাটা, কালীগঞ্জ, শ্যামনগর উপজেলার পৌনে ছয় কিলোমিটার বেড়িবাঁধ জলোচ্ছ্বাসে ভেঙে গেছে। এছাড়াও ছয় হাজার ৭৩৮ হেক্টর মাছের ঘের ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাগেরহাট জেলায় ২৪ হাজার ৯১৬ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এখানে ৬৯০টি ঘরবাড়ি আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। বরগুনায় বিভিন্ন উপজেলার ১৭ হাজার ৩২০ জন মানুষ ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই জেলায় এক হাজার ৮০০টি ঘরবাড়ি আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। ভোলায় সাত হাজার ৭৩০টি ঘরবাড়ি আংশিক এবং তিন হাজার ৫৭৯টি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। কক্সবাজারে ২০ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং দুই হাজার ৪৭০টি ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফেনীতে ২০০ বাড়িঘর আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। ঝালকাঠির এক লাখ ৪৯ হাজার মানুষ ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতির মুখে পড়েছেন, ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে ৫০টি। খুলনার চার উপজেলায় দুই হাজার ২৪০টি ঘরবাড়ি আংশিক ও সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সাড়ে ছয় হাজার মানুষ। লক্ষ্মীপুরে ২২ হাজার মানুষ ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্ষতির মুখে পড়েছেন, বরিশালের ১০ উপজেলা এবং ছয় পৌরসভার এক লাখ ২৭ হাজার ১৬২ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উলে¬খ করে প্রতিবেদনে বলা হয়, বরিশালে এক হাজার ২০০ ঘরবাড়ি আংশিক ও সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। ভোলার বোরহানউদ্দিন, দৌলতখান, লালমোহন, তজুমদ্দিন, চরফ্যাশন, মনপুরায় প্রভাবে পড়েছে ঘূর্ণিঝড়ের। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এক লাখ ৬৯ হাজার ২৬০ জন মানুষ।

এ বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় প্রশাসন থেকে ক্ষয়ক্ষতির প্রাথমিক হিসাব পাওয়া গেছে। জেলা প্রশাসনের সব ডিপার্টমেন্ট মিলে ডি-ফরমে চূড়ান্ত হিসাব পাঠাবে। সেই হিসাবটাই মূলত বিবেচনায় নেয়া হবে।

আপনার সামাজিক মিডিয়ায় এই পোস্ট শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর :

সম্পাদক মণ্ডলীর সভাপতি:

এম এ কাশেম ( এম এ- ক্রিমিনোলজি).....01748159372

alternatetext

সম্পাদক ও প্রকাশক:

মো: তুহিন হোসেন (বি.এ অনার্স,এম.এ)...01729416527

alternatetext

বার্তা সম্পাদক: দৈনিক আজকের সাতক্ষীরা

সিনিয়র নির্বাহী সম্পাদক :

মো: মিজানুর রহমান ... 01714904807

নিবার্হী সম্পাদক :

এস.এম আবু রায়হান (বি.বি.এ)...01735045426

© All rights reserved © 2020-2023
প্রযুক্তি সহায়তায়: csoftbd